Home খেলা আফগানদের বিপক্ষে বড় জয় নিয়ে সুপার এইটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

আফগানদের বিপক্ষে বড় জয় নিয়ে সুপার এইটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

20
0
SHARE

শুরুতে ঝড় তুললেন নিকোলাস পুরান। অল্পের জন্য সেঞ্চুরি মিস করলেও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ এনে দেন তিনি। এরপর বোলারদের পারফরম্যান্সে সহজ জয় পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজও।

মঙ্গলবার গ্রস আইসলেটে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গ্রুপ ‘সি’ এর ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১০৪ রানে জয় পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এই ম্যাচে শুরুতে ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ২১৮ রান করে ক্যারিবীয়রা। পরে ওই রান তাড়া করতে নেমে ১৬ ওভার ২ বলে ১১৪ রানে অলআউট হয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দুই দলেরই আগেই সুপার এইট নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল, এই ম্যাচের ফল তাই কোনো প্রভাব রাখবে না।

আগে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই এদিন আক্রমণাত্মক ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যদিও দ্বিতীয় ওভারে গিয়েই ব্রেন্ডন কিংকে ফেরান আজমতউল্লাহ ওমরজাই। ৬ বলে ৭ রান করে তিনি হযে যান বোল্ড। এরপর ক্রিজে আসেন নিকোলাস পুরান।

আফগানিস্তানের দুঃস্বপ্নের শুরুও হয় ওখানেই। ফজল হক ফারুকীর তৃতীয় ওভারে ১৫ রান এনে দেন জনসন চার্লস। পুরান আজমতউল্লাহ করার পরের ওভারে নেন ৩৬ রান! সব অবশ্য ব্যাট থেকে আসেনি। তিনটি ছক্কা ও দুটি চার হাঁকান পুরান। এর সঙ্গে নো বল, ওয়াইড, লেগ বাই মিলিয়ে আসে বাকি রান।

এক ওভারে ৩৬ রান হজম করার তালিকায় পাঁচ নম্বর নাম এখন ওমরাজাইয়ের। এর আগে ২০০৭ সালে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে প্রথমবার যুবরাজ সিং ৩৬ রান নিয়েছিলেন। পাওয়ার প্লের ছয় ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তোলে ৯২ রান। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রান এটি পাওয়ার প্লেতে।

অষ্টম ওভারে গিয়ে আরও একটি উইকেট তুলে নেয় আফগানিস্তান। এবার ২৭ বলে ৪৩ রান করা চার্লসের ক্যাচ নেন গুলবাদিন নাইব। নাবিন উল হকের বলে আউট হন তিনি। মাঝের ওভারগুলোতে রানের গতি কিছুটা কমে আসে।

গুলবাদিন নাইবের ওভারে ১৭ বলে ২৫ রান করে আউট হন শাই হোপ। শেষদিকে গিয়ে ফের ঝড় তোলেন পুরান। রশিদ খানের করা ১৮তম ওভার থেকে ২৪ রান নেন তিনি। নাভিনের করা ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম তিনটির দুটিতে ছক্কা হাঁকান।

পৌঁছে যান ৯৮ রানে। কিন্তু রান আউট হয়ে আর সেঞ্চুরি পূর্ণ করা হয়নি তার। ৫৩ বলে ৬টি চার ও ৮টি ছক্কায় ৯৮ রান করেন তিনি। তার ইনিংসে এবারের বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসেরও পঞ্চম সর্বোচ্চ দলীয় রান এটি।

বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে একদমই সুবিধা করতে পারেনি আফগানিস্তান। দলটির পক্ষে ২৮ বলে সর্বোচ্চ ৩৮ রান করেন ইবরাহিম জাদরান। ১৯ বলে ২৩ রান আসে আজমতউল্লাহ ওমরজাইয়ের ব্যাটে। এর বাইরে দুজন ব্যাটারই নিজেদের রান নিয়ে যেতে পেরেছেন দুই অঙ্কের ঘরে।

৯ বলে করিম জানাত ১৪ ও রশিদ খান ১১ বলে ১৯ রান করেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ৩ ওভারে ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন ওভেদ ম্যাককয়। দুটি করে উইকেট পান আকিল হোসেন ও গুদাকেশ মোতি। একটি করে উইকেট নেন আন্দ্রে রাসেল ও আলজেরি জোসেফ।